আদর্শ জীবন -শ্রীশ্রীআনন্দমূর্ত্তিজী

  • Post Author:
  • Post Category:Blog

আদর্শ জীবন

-শ্রীশ্রীআনন্দমূর্ত্তিজী

“যচ্ছেদ্‌ বাঙ্‌মনসী প্রাজ্ঞস্তদ্‌ যচ্ছেজ্‌ জ্ঞান মাত্মনি।

জ্ঞানমাত্মনি মহতি নিযচ্ছেৎ তদ্‌ যচ্ছেচ্ছান্ত আত্মনি”।।

সাধকের জীবন কেমন হওয়া উচিত তা নিয়ে এর আগেও বলেছি। বলেছি যে একজন যথার্থ সাধক এই আপেক্ষিক জগতের কর্ত্তব্যগুলোও যথাযথ ভাবে করবে, আবার আধ্যাত্মিক জগতের কর্ত্তব্যগুলোও ঠিক ঠিক করতে থাকবে। আর এই উভয় জগতের মধ্যে থাকবে একটা সুসামঞ্জস্য (happy blending)। বহির্জগতে থাকবে একটা সুসন্তুলিত অবস্থা (objective adjustment) আর সেই সঙ্গে মনোজগতে থাকবে ঈশ্বরাভিমুখী মনোবৃত্তি (subjective approach)। সাধকের কখনও ভোলা উচিত নয় যে তার জীবনটা হ’ল একটা আদর্শাভিমুখী গতি (ideological flow)।

আদর্শের দিকে মানুষ ক্রমাগত এগিয়ে চলবে। অনাদি কাল থেকে মানুষ সেই ভাবেই চলে আসছে আর চলতে চলতে আজ সে মানুষের স্তরে এসে পৌঁছেছে। এই চলার পথে তাকে কত পশু-পক্ষীর জীবন, কত কীট-পতঙ্গের জীবন যাপন করতে হয়েছে। কত দুঃখ-কষ্ট, কত লাঞ্ছনা-অপমান তাকে ভোগ করতে হয়েছে। যেমন ধরো, একটা ছাগলের জীবন। ঘাস খেয়ে তার দিন কাটছিল; একদিন কসাই এসে তাকে ধরল, কাটল, ছাল-চামড়াটা ছাড়িয়ে ফেলল। এমনই দুঃখময় জীবন তাকে একদিন যাপন করতে হয়েছে। সে কথা আজ সে ভুলে গেছে। আর এভাবেই এগিয়ে চলতে চলতে সে পেয়েছে আজ মানুষের জীবন।

পশুজীবনের চেয়ে মানুষের জীবনে নিরাপত্তা অনেক বেশী। পশুকে জীবন কাটাতে হয় বনে জঙ্গলে যেখানে সর্বদাই একটা ভয়-ভয় ভাব থাকে, এই বুঝি অন্য একটা শক্তিশালী পশু এসে আক্রমণ করে বসে, তাকে মেরে খেয়ে ফেলে। তাকে সর্বদাই এই রকম ভয়-ভীতির মধ্যে দিন কাটাতে হয়। আর এই ভীতি-সন্ত্রস্ততা থেকে, এই নিরাপত্তাহীনতা থেকে বাঁচবার জন্যে অনেক বন্য পশু এসে মানুষের কাছে আশ্রয় নিয়েছিল। মানুষ তাদের ঘাস-পালা, এটা-ওটা খেতে দিয়েছিল। কিন্তু হামেশাই সে একটা সুযোগের প্রতীক্ষায় থাকত কখন সে তাকে মেরে কেটে খাবে। পশুজীবনের এটাই হ’ল কথা। পশু মানুষকে পুরোপুরি বিশ্বাস করে; এমনকি মৃত্যুর এক মুহুর্ত্ত আগে পর্যন্তও মানুষকে বিশ্বাস করে। কিন্তু পরে যখন তার সেই  বিশ্বাসের পাত্রকে অস্ত্র হাতে তাকেই হত্যা করতে আসতে দেখে, তখন বুঝে নেয় যে সে এতদিন যাকে বন্ধু ভেবেছিল আসলে সে বন্ধু নয়- শত্রু। একদিন তাকে কাটবার জন্যেই ঘাস-পালা খাওয়াত। পশুর প্রতি মানুষের যে বন্ধুত্ব, যে দরদ, সেটা নিতান্তই লোক দেখানো। এতে কোন ভালবাসা নেই, সত্যিকারের কোন দরদ নেই। এটাই পশুজীবনের অভিশাপ।

প্রত্যেক মানুষকে এই রকম পশুজীবনের মধ্য দিয়ে এগিয়ে চলতে হয়েছে। সবাই একদিন পশু ছিল আর এই কথাটা মনে রেখেই তো মানুষের ভাবা উচিত যে তাদেরও একদিন এই রকম দুঃখময় জীবন কাটাতে হয়েছিল। তাই যে সমস্ত পশু আজ আমাদের আশ্রয়ে রয়েছে, তাদের যেন সে রকম জীবন যাপন করতে না হয়। যে নারী তার শাশুড়ীর কাছ থেকে লাঞ্ছনা-গঞ্জনা সহ্য করেছে তার তো সতর্ক হওয়া উচিত যাতে তার পুত্রবধূরা তার কাছ থেকে ওই ধরণের দুর্ব্যবহার না পায়। কথাটা ঠিক নয় কি? তোমরা এমনটা করো তো ! আজ তোমরা অনেকেই শাশুড়ী হয়েছ, একদিন তোমাদেরও পুত্রবধূ হিসেবে দিন কাটাতে হয়েছিল। তেমনি পশুর সম্বন্ধে মানুষেরও ভেবে দেখা উচিত যে আমাকেও একদিন পশুজীবন যাপন করতে হয়েছিল।

মানুষের উচিত বাহ্যিক জগতে ঠিক ঠিক ভাবে আপন কর্ত্তব্য করে যাওয়া আর সর্বদা সতর্ক থাকা যাতে তার জন্যে অনর্থক কারো কষ্ট না হয়। এর ফলে জাগতিক ক্ষেত্রে আমার যে অধিকার সেটা সুপ্রতিষ্ঠিত থাকবে। প্রতিটি মানুষ যাতে খাদ্য, বস্ত্র, আশ্রয় ঠিক মত পায় সেদিকে অবশ্যই লক্ষ্য রাখতে হবে। আমি কাউকে শোষণ করব না, আবার অপরের দ্বারা নিজেকে শোষিত হতেও দেব না- এটাই হ’ল বহির্জাগতিক সন্তুলন বা objective adjustment। অর্থাৎ বাইরের জগতের সঙ্গে ঠিক ঠিক সম্বন্ধও রাখতে হবে, আবার কাজও করতে হবে। কিন্তু বাইরের জগতে এই যে সামঞ্জস্য , এটাকে বজায় রেখে আমাকে জীবিনে এগিয়ে চলতে হবে। কিন্তু একথাটা ক্ষণিকের জন্যেও ভুললে চলবে না যে আমি কেবল এই স্থূল জগতের জন্যে আসিনি। স্থূল জগতের জন্যে আসে পশু। সেখানে বাঁচবার জন্যে তাকে সর্বদাই লড়াই চালিয়ে যেতে হয়। কেউ জঙ্গলে রয়েছে তো সেখানে বাঘ-ভালুক, হাতী-সিংহ, সাপ-কুমীর, কত ভয়ঙ্কর জন্তুর ভয় থাকে। আর যে সব জীবজন্তু মানুষের কাছে আত্মসমর্পণ করেছে –  যেমন ছাগল, ভেড়া, গোরু-মোষ ইত্যাদি, তাদেরও সর্বদা ভয় থাকে মানুষ কখন তাদের বধ করে খেয়ে ফেলে। কাজেই পশুর জীবনে নিরাপত্তা  কোথায়! কিন্তু মানুষের জীবনে এ ধরণের জাগতিক নিরাপত্তা পশুর চেয়ে অনেক বেশী।

এই যে বস্তুতান্ত্রিক জগতে সন্তুলন, এর জন্যে মানুষকে ব্যতিব্যস্ত হওয়া উচিত নয়। যেহেতু আজও আমরা একটা সুষ্ঠু মানব সমাজ গড়ে তুলতে পারিনি, তাই মানুষকে খাদ্য, বস্ত্র, চিকিৎসা ইত্যাদি ব্যাপারে জাগতিক অনুপপত্তি পূরণের জন্যে ব্যতিব্যস্ত থাকতে হবে বৈ কি। আদর্শ সমাজ তৈরী হয়ে গেলে তাকে এর জন্যে অযথা হয়রান হতে হবে না। সেদিক থেকে মানুষ কিছুটা নিশ্চিন্ত থাকতে পারে। তখন আধ্যাত্মিক প্রগতির জন্যে মানুষ চেষ্টাশীল হবার অধিক সুযোগ পাবে, বেশী সময় পাবে। আর মানুষের যে Subjective approach অর্থাৎ পরমপুরুষের দিকে এগিয়ে চলা, তার তাৎপর্য হচ্ছে এই যে বাইরের জগৎ থেকে ধীরে ধীরে স্থূল মনকে প্রত্যাহার করে সূক্ষ্ম মনে, সূক্ষ্ম মনকে আত্মায় সমাহিত করতে হবে। আত্মা যখন পরমাত্মায় সমাহিত হয়ে যায়, তখন বুঝতে হবে, মানুষ জীবনের চরম লক্ষ্যে পৌঁছে গেছে। আজকের পৃথিবীতে বহির্জাগতিক সন্তুলন নিয়ে মানুষকে অতি মাত্রায় হয়রান হতে হচ্ছে। তাই আধ্যাত্মিক প্রগতির জন্যে মানুষ সময় দিতে পারছে না। এটাই হ’ল সবচেয়ে দুঃখের কথা। তাই আমি তোমাদের বলব যে শীঘ্রাতিশীঘ্র একটা সুস্থ মানব সমাজ তৈরী করে নাও, যাতে প্রতিটি মানুষ আত্মিক সাধনার জন্যে প্রচুর সময় ও সুযোগ পায়।

(আনন্দবচনামৃতম ৭ম খণ্ড থেকে সংগৃহীত)